ঢাকারবিবার , ২৯ অক্টোবর ২০২৩
  • অন্যান্য
  1. আইন
  2. ইতিহাস
  3. ইসলামী সঙ্গীতের লিরিক্স
  4. কবিতা
  5. কিংবদন্তী কবিদের কবিতা
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প
  9. চিঠিপত্র
  10. জনপ্রিয় বাংলা গানের লিরিক্স
  11. তারুণ্যের কথা
  12. ধর্ম
  13. প্রবন্ধ
  14. প্রযুক্তি
  15. ফিচার

নিয়তের অর্থ কি? নিয়ত করার গুরুত্ত এবং বর্তমান সমাজ বাস্তবতা

মৃধা প্রকাশনী
অক্টোবর ২৯, ২০২৩ ৮:২০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

 

নিয়ত আরবী শব্দ। এর বাংলা অর্থঃ ইচ্ছা করা, মনস্ত করা, এরাদা করা, সংকল্প করা।

নিয়ত হলো একটি ইসলামি ধারণা যেখানে একজন ব্যক্তি আল্লাহর উদ্দেশ্যে কোনো ইবাদত করার আগে ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

নিয়ত শব্দটি আমরা বাংলাভাষী লোকেরাও ব্যবহার করে থাকি। যেমন আমরা বলি: আমি এ বছর হজ্জ করার নিয়ত করেছি। অর্থাৎ ইচ্ছা করেছি মনস্থ করেছি।

 

নিয়তের গুরুত্বঃ

শরীয়তে নিয়তের গুরুত্ব অপরিসীম। ব্যক্তির আমল আল্লাহর নিকট গ্রহণীয় হয়না যতক্ষণে বান্দা তার নিয়ত সঠিক না করে নেয়। অর্থাৎ , আল্লাহর জন্যে তাঁর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে নিয়ত না করে নেয়। আল্লাহ বলেনঃ

(তাদেরকে এছাড়া কোন নির্দেশ করা হয়নি যে, তারা খাঁটি মনে একনিষ্ট ভাবে আল্লাহর এবাদত করবে…)। (সূরা বাইয়্যিনাহ/৫)

 

নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেনঃ

“আমল সমূহ নিয়তের (ইচ্ছার) উপর নির্ভরশীল, আর প্রত্যেক ব্যক্তি তাই পাবে যা সে নিয়ত করবে। সুতরাং যে ব্যক্তি পার্থিব জীবনে সুখ-শান্তি লাভের উদ্দেশ্যে হিজরত করবে সে তাই পাবে। কিংবা কোন মহিলাকে বিবাহ করার উদ্দেশ্যে হিজরত করবে সে তাই পাবে“। (বুখারী, প্রথম হাদীস)

 

হাদীসটিতে নবীজী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর বক্তব্য স্পষ্ট যে, মানুষ তার নিয়ত অনুযায়ী প্রতিফল পায়। দৃষ্টান্ত স্বরূপ হিজরত। হিজরত অর্থ: ইসলামের বিধি-বিধান পূর্ণ রূপে পালন করতে পারা যায়না এমন দেশ ছেড়ে সে দেশে যাওয়া যেখানে বিনা অসুবিধায় পালন করা যায়। অন্য কথায়, কুফরের দেশ ত্যাগ করে ঈমানের দেশে প্রত্যাবর্তন করা। [ফাতহুল বারী, ১/২১]

 

তাই কোন ব্যক্তি যদি এ কারণে দেশ ত্যাগ করে যে, সে যে দেশে যাচ্ছে সেখানে যাওয়ার তার উদ্দেশ্যে হল কোন রমণীকে বিবাহ করা বা দুনিয়াবী কোন সুবিধা অর্জন করা, তাহলে সে তাই পাবে। হিজরতের ফলে কোন নেকী পাবেনা। যদি সে ঈমান বাঁচানোর উদ্দেশ্যে হিজরত করতো, তাহলে নেকী পেত। কাজ একই কিন্তু নিয়তের পরিবর্তনের কারণে নেকী পাওয়া এবং না পওয়া নির্ভর করছে।

বর্তমান সমাজে আমরা অনেক মানুষ দেখতে পাই যারা অনেক ভালো এবং মহৎ কাজ করে থাকেন শুধুমাত্র মানুষের সন্তুষ্টি অর্জন এবং লোকদেখানোর উদ্দেশ্যে।উপরোক্ত হাদিস সমূহ বিশ্লেষণ করে পাওয়া যায় এ ধরনের মহৎ কর্মীরা তাদের দুনিয়াবী উদ্দেশ্য হাসিলে সফল হলেও আল্লাহর সন্তুষ্টি এবং আখিরাতের জীবনের বিষয়টা অপূর্ণ থেকে যায়।তাই আমাদের সকলের উচিত সবার আগে নিয়তের বিশুদ্ধতা অর্জন করা।তবেই আমাদের দুনিয়া এবং আখিরাত উভয়ই সুন্দর ও সফলকাম হবে ইন শা আল্লাহ।

শাম্মী আক্তার
ইতিহাস বিভাগ (২০২২-২৩)
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

Please follow and like us:

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial