ঢাকারবিবার , ২৯ অক্টোবর ২০২৩
  • অন্যান্য
  1. আইন
  2. ইতিহাস
  3. ইসলামী সঙ্গীতের লিরিক্স
  4. কবিতা
  5. কিংবদন্তী কবিদের কবিতা
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প
  9. চিঠিপত্র
  10. জনপ্রিয় বাংলা গানের লিরিক্স
  11. তারুণ্যের কথা
  12. ধর্ম
  13. প্রবন্ধ
  14. প্রযুক্তি
  15. ফিচার

আত্মহত্যা নাকি হত্যা

মৃধা প্রকাশনী
অক্টোবর ২৯, ২০২৩ ৮:২৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

 

সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলছে মেয়েটার নিথর দেহখানি।লোকজন লাশ নামাতে ভয় পাচ্ছে। তার চোখ খোলা।মনে হচ্ছে, কি অসহায় দৃষ্টিতেই না চেয়ে রয়েছে!যেন চিৎকার করে বলছে কেন আমাকে বাঁচতে দিলে না? আমার কি বাঁচার অধিকার ছিল না?কি বিভৎস দৃশ্য!

 

মাস ছয়েক আগে শশুড়বাড়ীতে পা দিয়েছিলো মেয়েটি।চোখে মুখে একটা সুন্দর সংসারের স্বপ্ন নিয়ে। সেদিন কি ভাবতে পেরেছিল এত তাড়াতাড়ি তাকে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে বিদায় নিতে হবে!

 

গরীব ঘরের মেয়ে ছিলো সে।বাপ তার অনেক ধারদেনা করে বিয়ের আয়োজন করে। উপহারস্বরুপ তার সাথে পাঠিয়ে ছিলোও গাড়িভর্তি সংসারের যাবতীয় সামগ্রী।কিন্তু হায়! বছরী পণ্য জোগানোর সাধ্য যে বাপের ছিলো না।তার উপর ৫ সন্তান মা বউ মিলে ৮ সদস্যের সংসার চালানোর গুরু দায়িত্ব। তারপরও বাপ চেষ্টা করে যাচ্ছিলো মেয়ের শশুরবাড়ির আবদার মেটানোর।
কিন্তু হায় রে পোড়াকপালি! বাপ এত কষ্ট করার পরও শশুড়বাড়ীর মানসিক অত্যাচার থেকে রেহায় পাচ্ছিলো না। এক একটা কথা,এক একটা অপমান যেন তার বুকে তীরের মতো বাধঁছিলো। ক্ষত বিক্ষত করে দিয়েছে ভিতর থেকে।দিনের পর দিন মুখ বুঝে সহ্য করছিল সে। ওই যে সবাই বলছে চুপ করে থাক একদিন সব ঠিক হয়ে যাবে। বাপের ঘরে ফিরবার সাহসটুকু তার ছিলো না।

 

অতঃপর কাল রাতে সে ভেবে দেখলো-“সব সমস্যা তো আমাকে নিয়ে।আমি চলে গেলে বাপকে আর এত কষ্ট করতে হবে না আর শশুরবাড়ির মুখ ও ছোট হবে না” যেই বলা সেই কাজ। সকালে তার সাড়াশব্দ না পেয়ে যখন দরজা ভাঙ্গা হলো তখন দৃশ্যয়মান হলো এই বিভৎস দৃশ্য।”ফাসঁ খেয়েছে মেয়ে।ফাসঁ খাওয়া মানুষের জানাযা হয় না।এক হাত মাটি খুঁড়ে পুতে দাও।”
এটা কি আসলেই আত্মহত্যা ছিলো?
নাকি হত্যা?
আর কত মেয়ের রক্ত ঝরলে বন্ধ আমাদের এই উপহার দেওয়া নেওয়ার প্রথা?

 

কানিজ ফাতেমা মুনতাহা
বাংলা বিভাগ,চবি

 

Please follow and like us:

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial