ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৬ অক্টোবর ২০২৩
  • অন্যান্য
  1. আইন
  2. ইতিহাস
  3. ইসলামী সঙ্গীতের লিরিক্স
  4. কবিতা
  5. কিংবদন্তী কবিদের কবিতা
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প
  9. চিঠিপত্র
  10. জনপ্রিয় বাংলা গানের লিরিক্স
  11. তারুণ্যের কথা
  12. ধর্ম
  13. প্রবন্ধ
  14. প্রযুক্তি
  15. ফিচার

বাবার প্রতি  ভালোবাসা 

বাবার প্রতি  ভালোবাসা 
অক্টোবর ২৬, ২০২৩ ৬:৫৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

পৃথিবীতে আমরা মায়ের কাহিনী বা  মায়ের দোয়ার কথা যত শুনি তার চেয়ে খুবই কম শুনি বাবার ভালোবাসার কথা। এই মানুষটা যে নিরবে তার ভালোবাসা ঢেলে দেয় তা বুঝতে পারেনা কেউ। মুয়াজ তার বাবাকে ভালোবাসে কিন্তু সেই ভালোবাসা দেখাতে পারেনা। কারণ বাবার ভালোবাসার কাছে তার ভালোবাসা হার মানে। মুয়াজ এবং মায়াজ দুই ভাই, তাদের কোন বোন নেই। মুয়াজ ছোট হওয়ায় তার অভিমানটা একটু বেশি। তার ইচ্ছা বড় হয়ে হলেও সে তার বাবার প্রতি ভালোবাসা দেখাবে । সে এবার অষ্টম শ্রেণির ছাত্র। সর্বপ্রথম সে পরীক্ষায় এ প্লাস পেয়ে তার ভালোবাসার প্রথম ধাপ পার করতে চাই। তার বাবা সামান্য চাকরিজীবী হলেও তাদের খাবারের অভাব নেই। নানান ধরনের খবার রান্না করে তার ‘মা’ তার বড় ভাই মায়াজ এবারে মাস্টার্স শেষ করেছে। সে মুয়াজের খবর নেই নিয়মিত। এবং টাকা পাঠাই শিক্ষা সামগ্রী কেনার জন্য। মুয়াজ বিসিএস ক্যাডার হয়ে দেখিয়ে দিতে চাই যে বড় হয়ে কিভাবে বাবার প্রতি ভালোবাসা দেখানো যায়।

 

আমাদের সমাজে এরকম হাজারো মুয়াজ আছে যেখানে  তাদের পিতা মাতা বড় করে যেন বৃদ্ধ বয়সে তাদের ভালোবাসে। কিছু মুয়াজ ভালোবাসা দেয়, কিছু মুয়াজ  ভালোবাসা তো দূরের কথা খোঁজ খবর রাখে না। আমাদের সমাজে পিতা নামক জাতি নিয়ে কেউ লিখতে চাই না, খুব কম কবি সাহিত্যেক আছে যারা তাদের বাবাকে নিয়ে লিখেছেন। বলতে গেলে পিতারা তেমন ভালোবাসা পাননা।

 

মুুয়াজদের স্কুলে আজ বাবা দিবস পালন করবে। সেই উপলক্ষে মেহমানরা বক্তব্য পেশ করবেন। সে ক্লাসে ফার্স্ট হওয়ায় তাকে একটা ছোট বক্তব্য দিতে হবে। তবে সে জানে না বাবা সম্পর্কে কোন কিছু বলার মতো আছে কিনা, কিছু খোঁজে পাচ্ছিল না। তবুও  সে নিজের পিতাকে নিয়ে লিখল এক আবেক ঘন বক্তব্য। সে শুরু করলো বিশ্বের সমস্ত বাবার প্রতি ভালোবাসা জানিয়ে। বাবা আমি তোমাকে ভালোবাসি যেভাবে তুমি আমাকে ভালোবাসো। আমি তোমার মতো একজন বাবা পেয়ে গর্বিত। যদিও তোমার দেয়া উপদেশ মানি না, তোমাকে এড়িয়ে চলি, তোমাকে ভালোবাসার নামে কষ্ট দেই….  এই টুকু বলে তার চোখ দিয়ে পানি চলে আসে স্টেজে সবাই কন্না শুরু করে দেয় যার যার বাবাকে স্মরণ করে। আসলে পৃথিবীরতে বাবা না থাকলে অনেক গল্প হতো না, হতো না অনেক আয়োজন। বাবারা সারাদিন কঠিন পরিশ্রম করে শুধু মাত্র তার সন্তানের জন্য। প্রগ্রাম শেষে মুয়াজ বাসায় ফিরে আসে, আজকে কেন জানি তার মন খারাপ। তার বাবা তা আঁচ করতে পেরে মুয়াজকে ডাকে বলে বাবা তোমার মন খারাপ কেন? তখন সে অনুষ্ঠানে সুফিয়ান সাহেবের যে  বক্তব্য শুনেছে তার স্মৃতিচারণ করে। তার পিতার কারণে সে আজ উপজেলা শিক্ষা অফিসার হতে পেরেছে, যদিও সে পিতার কথা মানতো না, পিতার আগ্রহকে এড়িয়ে চলতো, তবুও তার পিতা নাকি তাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখত যে সে অনেক বড় হবে, জনগনের খেদমত করবে। আজকে তার পিতা পৃথিবীতে নেই তবে আছে তার দেখে যাওয়া স্বপ্ন। মুয়াজ আজ থেকে শপথ নিয়েছে সে কবু তার পিতাকে কষ্ট দিবে না, পিতার কথা মতো চলবে। সে দেখিয়ে দিতে চাই তার বাবার অপ্রকাশিত স্বপ্ন, বিশ্বময় ছড়িয়ে দিতে চাই  বাবার প্রতি ভালোবাসা। আর যেন বাবারা অবহেলিত না হয়। তার বাবা আজ বেশ খুশি কারণ তার স্বপ্ন মুয়াজ পূরণ করেছে। তার সাথে সমস্ত বাবারা খুশি কারণ তাদের সন্তানেরা তাদের এখন ভালোবাসে।

 

মো. রুকন উদ্দিন

শিক্ষার্থী: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

০১৮৮৪৯৮৪৯০৩

Please follow and like us:

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial