ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৯ অক্টোবর ২০২৩
  • অন্যান্য
  1. আইন
  2. ইতিহাস
  3. ইসলামী সঙ্গীতের লিরিক্স
  4. কবিতা
  5. কিংবদন্তী কবিদের কবিতা
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প
  9. চিঠিপত্র
  10. জনপ্রিয় বাংলা গানের লিরিক্স
  11. তারুণ্যের কথা
  12. ধর্ম
  13. প্রবন্ধ
  14. প্রযুক্তি
  15. ফিচার

কেন অস্তিত্বর সংকটে আছে জোনাকি পোকা?

মৃধা প্রকাশনী
অক্টোবর ১৯, ২০২৩ ১০:৪৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ছোটবেলায় জোনাকির আলো দেখতে পেলে মনে হত এরা বুঝি আকাশের তারা। বিশেষ কোন কারণে এরা আকাশ থেকে নেমে পৃথিবীতে মিটিমিটি আলো দেয়। আমার শৈশব কেটেছে গ্রামে। তখন এখনকার মত বৈজ্ঞানিক আলো ছিল না, হারিকেনের আলো ছিল আমাদের অন্ধকারে মশালস্বরুপ। আলোটা নিভিয়ে দিলেই আশেপাশে যতদূর চোখ যায় ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র আলো জ্বলছে আবার কোথায় যেন হারিয়ে যাচ্ছে।কোনটা নিচে পরে গেলে আবার দৌড়ে যেয়ে পাখনা মেলতে সাহায্য করা, ঘাপটি মেরে বসে থেকে খপ করে ধরা, বোতল ফুটো করে তার ভেতর জোনাকি জমা করে লাইটের ন্যায় ব্যবহার করা, এ যেন বর্তমানের শিশুদের জন্য এক রুপকথার গল্প বা কার্টুনে দেখা আলোর বিচ্ছুরণ। বিজ্ঞানীদের মতে, গ্রীষ্ম এবং নাতিশীতোষ্ণ মন্ডলে প্রায় দুই হাজার প্রজাতির জোনাকি আছে। এরা সাধারণত ভেজা, পুকুর বা ডোবা এবং কাঠ আছে এমন এলাকায় সহজেই বাসা বাঁধে। এদের মধ্যে অনেক প্রজাতি আছে যাদের বংশ বিস্তারের জন্য প্রয়োজন ম্যানগ্রোভ জাতীয় গাছ গাছালির এলাকা । বর্তমানে বৈশ্বিক উষ্ণায়ন, গ্রিন হাউসের প্রভাব, ওজন স্তরের ক্ষয় প্রভৃতি কারণে পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস ও বন্যার ফলে উপকূলীয় এলাকার বন ধ্বংস হচ্ছে সেই সাথে ম্যানগ্রোভ বন ধ্বংসের ফলে এই প্রজাতির জোনাকিদের জীবন যুদ্ধে টিকে থাকার প্রচেষ্টা কমে যাচ্ছে। আর এক প্রজাতির জোনাকি আছে যারা আলোর সংকেত দেখিয়ে সঙ্গীদের নিজেদের দিকে আকৃষ্ট করে এবং বংশ বৃদ্ধি করে থাকে‌।এ জাতীয় জোনাকিদের আলো উৎপন্ন হয় সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক ভাবে। এরা লুসিফেরিন (Luciferin) নামক কেমিক্যাল তাদের শরীরের বহন করে। এই কেমিক্যালের সাথে অক্সিজেন রিঅ্যাকশন হলে এই আলো উৎপন্ন হয়ে থাকে বলে বিজ্ঞানীরা মনে করেন। জোনাকিদের আলো কেমিক্যালে রিঅ্যাকশনের ফলে তৈরি হয় বলে বেশি শক্তিশালী হয় না। আর বর্তমানে বৈজ্ঞানিক আশির্বাদে কৃত্রিম আলো গ্রামীণ জনপদেও বিস্তার লাভ করায় জোনাকিরা তাদের আলোর সংকেত দেখিয়ে সঙ্গীদের আকৃষ্ট করতে পারছে না । ফলশ্রুতিতে জোনাকিদের বংশ বিস্তার হ্রাস পাচ্ছে। এছাড়াও কৃষি জমিতে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশকের ব্যবহার জোনাকিদের অবস্থান টিকিয়ে রাখা প্রায় অসম্ভব। যার ফলে পৃথিবী থেকে প্রায় দুই হাজার প্রজাতির জোনাকির বিলুপ্তি এখন সময়ের অপেক্ষা মাত্র। কিন্তু আফসোস হারিকেন, হ্যাজক বাতি বা কুপি বাতির বিকল্প হিসেবে কৃত্রিম আলো বা বৈদ্যুতিক বাতি আবিষ্কার হলেও জোনাকির বিকল্প কিছু আসবে না । বিলুপ্ত প্রায় ঐতিহ্য জাদুঘরে দেখা মিললেও জোনাকির মিটিমিটি আলো চিরতরে নিভে যাবে পৃথিবীর বুক থেকে।
নাম:আন্জুমান আরা ঐশী
বিভাগ:ইসলামিক স্টাডিজ
প্রতিষ্ঠান:ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
মোবাইল নাম্বার:০১৭৭৯৪৬৪৪৭২
বাংলাদেশ তরুণ কলাম লেখক ফোরাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।
Please follow and like us:

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial