ঢাকাবুধবার , ১৮ অক্টোবর ২০২৩
  • অন্যান্য
  1. আইন
  2. ইতিহাস
  3. ইসলামী সঙ্গীতের লিরিক্স
  4. কবিতা
  5. কিংবদন্তী কবিদের কবিতা
  6. ক্যাম্পাস
  7. খেলাধুলা
  8. গল্প
  9. চিঠিপত্র
  10. জনপ্রিয় বাংলা গানের লিরিক্স
  11. তারুণ্যের কথা
  12. ধর্ম
  13. প্রবন্ধ
  14. প্রযুক্তি
  15. ফিচার

অকৃত্রিমতার আবেদন ধারা বয়ে চলুক

মৃধা প্রকাশনী
অক্টোবর ১৮, ২০২৩ ৪:১২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

দূর্বা ঘাস দিয়ে জল ঝরা,ধানের সবুজ শীষে আঙ্গুল মেলালে আঙ্গুল- জলকণার সখ্যতা, জল ঝরা দূর্বাতে খালি পায়ের -পাতা মেলালে শিশির ভেজা ঘাসের ছোঁয়া, দৃষ্টি মেলালে কুহেলি জড়ানো দিগন্ত ;প্রকৃতির অপরূপ -রূপের মাঝে বাঙালি হৃদয়ের আবেদন হয়ে ওঠে গরম- অমৃত ভাপা পিঠা,হাড় কাঁপানো শীতের সকালের মাটির কলসি ভরা কাঁচা খেঁজুর রস,দুধ-খেঁজুর রসের মিশ্রণে অকৃত্রিম ঘ্রাণে ভরপুর চিতই পিঠা (চাকতি সদৃশ এ এক নরম তুলতুলে লোমকূপ বিছানো,সুগন্ধি ছড়ানো বাঙালি খাদ্য।)

শীতের উত্তুরে হাওয়া এখনো গুনগুনিয়ে সুর তুলে কানের পাশ বেয়ে চলে,উত্তুরে হিমেল হাওয়ারা এখনো স্নান করায় তার শুভ্রতা দিয়ে, শরীরে -হৃদয়ে পুলক জাগায় ;তার-আমাদের সখ্যতা এখনো জীবন্ত। এই আজকের আমরা শৈশবের শীতের বিকেলে চাদরখানা গায়ে মুড়িয়ে দাদু -নানু -মামা -চাচাদের পেছনে ছুটিতাম মাটির কলসি -হাড়ি খেঁজুর কাণ্ডে লাগানো দেখিতে,লেপ- কম্বলের সাথে ভালোবাসার বিচ্ছেদ ঘটিয়ে খুবই ভোরে উঠে বসে থাকতাম পাটালিগুড় বানানোর উদ্দেশ্যে আগুনের আঁচে বসানো কড়াইকে হার মানিয়ে কাঁচা খেঁজুর রসকে নিজের পাকস্থলীর করে নিতে। আজও প্রকৃতির সেই সুন্দরতম হাতছানি থাকলে আমাদের অনুজেরা ছুটিতো,ওরাও খেঁজুর রস ছিনিয়ে নেওয়ার প্রতিযোগী হতো।
কিন্তু দুঃখের বিষয় হলেও বড়ই সত্যঃআমরা বাঙালিই আছি,শীতও আসে,আমাদের বাঙালি চাহিদাও একই আছে _শুধু নেই আমাদের সচেতনতার দৃষ্টি,আমরা কৃত্রিম বস্তুকে বসিয়েছি অকৃত্রিমতার জায়গাতে;এগুলো নিয়েই বাঙালি মনকে বোঝাচ্ছি তৃপ্ত থাকতে। সেই হাতছানি দিয়ে ডাকা প্রকৃতি বিলীনপ্রায়,শিল্পীর তুলিতে আঁকা খেঁজুর গাছের সমারোহ প্রকৃতিতে একসময় বিদ্যমান থাকলেও আজ তা সমারোহ থেকে হঠাৎ খুঁজে পাওয়া গাছ হয়ে দাড়াচ্ছে।খেঁজুর গাছের ক্রমহ্রাসের ফলে আমরা সেই অকৃত্রিম-নিখাদ পাটালিগুড়ও পাচ্ছি না,পাচ্ছি না সেই চুলার পাশে বসে গোগ্রাসে গেলার মতো অমৃত স্বাদের গরম ভাপা পিঠা,পাচ্ছি না সেই হাড়ি হাড়ি কলসি কলসি কাঁচা খেঁজুর রস।
আমরা বাঙালিরাই পারব সেই ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে _যদি একটু সচেতন হই,অকৃত্রিমতার স্থানকে কৃত্রিমতায় পূর্ণ না করি।আমাদের হৃদয় -মন -জিহবাকে তৃপ্ত করার উদ্দেশ্যে,বাঙালিপনা গাম্ভীর্য বজায় রাখতেই খেঁজুর গাছকে বাঁচিয়ে রাখা উচিত;প্রকৃতির নিকট ক্ষমার আবেদন রেখে নতুন খেঁজুর গাছের জীবন দিতে উদ্যমী আমাদেরকেই হতে হবে_কারণ প্রকৃতির সেই সুন্দরতম হাতছানির অভ্যেসকে আমরাই ধ্বংস করেছি।

জারিয়াতুল হাফসা
শিক্ষার্থী,সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
ই-মেইল :zariatulhafsa22@gm
ail.com
সদস্য, বাংলাদেশ তরুণ কলাম লেখক ফোরাম,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা

Please follow and like us:

Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial